ট্রাম্প মনোনীত অ্যামি কোনি ব্যারেটই হলেন মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি

us-senate-confirms-donald-trumps-nominee-to-supreme-court

নির্বাচনের আবহে বড়সড় স্বস্তি পেলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আমেরিকার সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি পদে বসলেন তাঁর মনোনীত অ্যামি কোনি ব্যারেট বেশ কয়েকদিন ধরেই জলঘোলা হচ্ছিল। মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের প্রার্থী বাছাই নিয়ে, অবশেষে সব জল্পনায় জল ঢেলে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মনোনীত আটচল্লিশ বছর বয়সী প্রার্থী অ্যামিই  প্রধান বিচারপতী পদে মনোনীত হলেন। স্থানীয় সময় মতে, সোমবার মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সেনেটে প্রধান বিচারপতি পদ নিয়ে ভোট হয়। রিপাবলিকানদের দখলে থাকা কক্ষে অ্যামি ৫২টি ভোট পেলেন । বিপক্ষ প্রার্থী পেলেন ৪৮টি।

উল্লেখ্য, মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষ সেনেটে সংখ্যাগুরু রিপাবলিকানরা। তাই দলীয় ও প্রেসিডেন্টের মত মেনে তাঁরাই এগিয়ে দিলেন অ্যামিকে। তারপরই হোয়াইট হাউসে একটি অনুষ্ঠানে চিফ জাস্টিস পদে শপথ নেন তিনি। অ্যামি কোনি ব্যারেটের নিয়োগের মাধ্যমে বর্তমানে মার্কিন সুপ্রিম কোর্টে বিচারক প্যানেলে রক্ষণশীলরা ৬-৩-এ এগিয়ে গেল। অ্যামি হলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কর্তৃক নিয়োগ পাওয়া তৃতীয় বিচারক। তাঁর জয়ের পর প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বললেন, ‘মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান, পক্ষপাতহীন আইনের জন্য স্মরণীয় দিন। আমরা যেন কখনও আমাদের ইতিহাস ও বীরদের প্রতি বিশ্বাস না হারাই।'‌এই পদে নির্বাচিত হওয়ায় আপ্লুত ব্যারেটও। তাঁর বক্তব্য, '‌আমি এখানে দাঁড়িয়ে গর্ব অনুভর করছি।'

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ঠিক আগে মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের গুরুত্বপূর্ণ পদে কি এমন নিয়োগ হওয়া উচিত? দীর্ঘদিন ধরেই এ নিয়ে তীব্র বিতর্ক চলছিল যুক্তরাষ্ট্রে। ডেমোক্র্যাটরা এই বিষয়টি নিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের বিরুদ্ধে প্রচার চালাচ্ছিলেন। তাঁদের বক্তব্য, সুপ্রিম কোর্ট দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সেখানে বিচারপতি নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রেসিডেন্টের হাত থাকে। প্রেসিডেন্ট বিচারপতি মনোনীত করেন। ফলে এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মুখে হওয়া অনুচিত।

উল্লেখ্য, মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি পদে অ্যামি কোনি ব্যারেট বসায় ট্রাম্প অনেকটাই স্বস্তি পেয়েছেন বলে মত বিশ্লেষকদের। কারণ, দিনকয়েক আগেই ট্রাম্প বলেছিলেন যে মার্কিন প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনে কোনও বিতর্ক হয়ে মামলা আদালতে গড়ালে বিচারপতির আসনে অ্যামিকে দেখতে চান তিনি। তবে নির্বাচন নিয়ে বিচারপতি অ্যামির দৃষ্টিভঙ্গী স্পষ্ট নয়। নির্বাচন সংক্রান্ত কোনও মামলায় এর আগে রায়দানও করেননি তিনি। ফলে আসন্ন নির্বাচনে কোন গোল বাঁধলে তা সামাল দিতে তিনি কতটা সক্ষম হবেন  তা সময়ই বলবে।

Tue 27 Oct 2020 16:23 IST | ওয়েব ডেস্ক