বিজয়ের মশালে উদ্ভাসিত এসএনইউ

বিরল সম্মানে দেশে প্রথম বাংলার শিক্ষাঙ্গন

vijay-mashal-in-snu-university-campus-first-in-country.png

বিজয় দিবসের অনির্বাণ মশাল পৌঁছল কলকাতায় । গতবছর দিল্লিতে, এই বিশেষ দিনটির সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের সূচনায়, বীর সেনানীদের স্মরণে মশাল জ্বালিয়ে ছিলেন প্ৰধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সেই অনির্বাণ শিখাই এবার এবার পৌঁছল সিস্টার নিবেদিতা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাঙ্গনে। যা এক দৃষ্টান্ত ।

পাক আগ্রাসনের বিরুদ্বে, মুক্তিকামী বাঙালির পাশে দাড়িয়েছিল ভারতীয় ফৌজ। ১৯৭১, ১৬ ডিসেম্বর, ভারতীয় সেনার কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল পাক ফৌজ । জন্ম হয় বিশ্বের প্ৰথম এবং একমাত্র বাংলাভাষী রাষ্ট্র বাংলাদেশের। তারপর থেকেই ভারত এবং বাংলাদেশ সাড়ম্বরে পালন করে এই বিশেষ দিনটিকে।

 গতবছর, সেই বীরত্বের ৫০ বছর পূর্তিতে দিল্লিতে এই অনির্বাণ শিখা জ্বালিয়ে ছিলেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত ঘুরে সে মশাল পৌঁছল, পশ্চিমবঙ্গে, দেশের অন্যতম সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সিস্টার নিবেদিতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাঙ্গনে। 

আজ, ১৫ মার্চ সেই বিশেষ মশাল ভারতীয় সেনার তিন বাহিনীর থেকে গ্রহণ করলেন এসএনইউ'র আচার্য সত্যম রায়চৌধুরী। মিলিটারি ব্যান্ডের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মধ্যে দিয়ে এই বিশেষ মশালটিকে রাখা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পোডিয়ামে। এই দীপ শিখাকে সম্মান জানায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমস্ত ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক এবং শিক্ষাকর্মীরা। এই অনুষ্ঠানে ১৯৭১–এর যুদ্ধের ওপর ভারতীয় সেনদের তৈরি একটি তথ্যচিত্রও প্রদৰ্শিত হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সভাকক্ষে। দেশের মধ্যে প্রথম, ঐতিহাসিক এই দীপ শিখা এসে পৌঁছল কোন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাঙ্গনে। রচিত হল এক গৌরবময় অধ্যায়ের।
 

Mon 15 Mar 2021 20:08 IST | আরম্ভ ওয়েব ডেস্ক