রাহাগির: নতুন ছবিতে গৌতম আরও মানবিক

প্রফুল্ল রায়ের ছোট গল্প অবলম্বনে গৌতম ঘোষের নতুন সিনেমা

বড় পর্দায় ম্যাজিক! ফিরছে শাহরুখ-কাজল জুটি

বলিউডের অন্দরমহলে সুখবর হাওয়ায় ছড়াচ্ছে। খুব শীঘ্রই বলিউডের অল টাইম ফেভারিট জুটিকে দেখা যাবে একসঙ্গে সিলভার স্ক্রিনে। রাজকুমার হিরানী-র আগামী ছবিতে বড় পর্দায় ফিরতে চলেছে শাহরুখ, কাজল। অভিনয় করবেন বিদ্যা বালন, তাপসী পান্নু, মনোজ বাজপেয়ী, বোমান ইরানি।

'বেলাইন': এ এক অন্যরকম ছবি

ভুল নম্বর থেকে আসা একটা কল-কে ঘিরে এগোতে থাকে কাহিনী। শুটিং শুরু। মুখ্য চরিত্রে পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শ্রেয়া ভট্টাচার্য। 

উত্তম তুমি উত্তম

আজ উত্তম কুমারের প্রয়াণ দিবস। রাজ্য জুড়ে নানাস্তরের মানুষ স্মরণ করলেন তাঁদের প্রিয় মহান নায়ককে। বাঙালির ভাবাবেগে উত্তম তুমি উত্তম। জাতির যাপনকে এভাবেই ছুঁয়ে থাকবেন মহা তারকা।

পর্দায় প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের কাহিনি 

প্রথম লুকে চমকে দিলেন পরীমণি

ইনস্টাগ্রামে তারকাদের জনপ্রিয়তা, শীর্ষে প্রিয়াঙ্কা। গুণমুগ্ধ ৬ কোটি ৫৬ লাখ 

ইনস্টাগ্রাম যেন আয়না! উঁকি দিলে চোখে পড়ে, কোন তারকার জীবন কেমন চলছে। শুধু কি তা–ই! তারকাদের আয়েরও আরেক উৎস এটি। যাঁর যত অনুগামী, তাঁর আয় তত বেশি। দেখা যাক,  হিন্দি সিমেমার তারকাদের মধ্যে কার ফ্যানের সংখ্যা কত?

হলিউড-বলিউড দুই জায়গাতেই  প্রিয়াঙ্কা চোপড়া খুব জনপ্রিয়।। তাঁর অনুরাগী ৬ কোটি ৫৬ লক্ষ।
শ্রদ্ধা কাপুরের জীবনযাপন সাধারণ হলেও জনপ্রিয়তায় তিনিও শীর্ষে। অনুরাগী ৬ কোটি ৩৮ লক্ষ। 

নিউ ইয়র্কে রিক্সা চালাচ্ছেন সন্দীপ্তা

বাংলা সিরিয়ালের জনপ্রিয় মুখ সন্দীপ্তা সেন। সুন্দর অভিনয়ের জেরেই বাঙালি দর্শকদের মনে পাকাপাকি জায়গা করে নিয়েছেন সন্দীপ্তা। 
অভিনেত্রীকে এবার দেখা গেলো নিউ ইয়র্কের রাস্তায় রিকশা চালাতে। সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিউ ইয়র্কের রাস্তায় রিকশা চালানোর একটি ছবি পোস্ট করেছেন সন্দীপ্তা । বোনকে পিছনে বসিয়ে সেখানকার সেন্ট্রাল পার্কের রাস্তায় রিক্সা চালিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন। করোনার সময় ঘরবন্দির থেকেছেন অনেক দিন। এবার ছবিটি শেয়ার করে জানিয়ে দিলেন পাখির মতো ঘুরছেন তিনি।

ইন্দিরা গান্ধীর বায়োপিকে অভিনয় এবং পরিচালনার  দায়িত্বে কঙ্গনা

ইন্দিরা গান্ধীর মতোই সাজগোজ করা একটি পুরনো ছবি  টুইটারে শেয়ার করে কঙ্গনা লিখেছেন...

শেরনি: বিদ্যার সাবলীল অভিনয়, দুর্ভেদ্য জঙ্গলের হাতছানি

গর্জন না করেও যে নিজের প্রতিপক্ষকে বুঝিয়ে দেওয়া সম্ভব, তা-ই প্রমাণ করে দিলেন পরিচালক অমিত মাসুরকার। ছবিতে বিদ্যা বালনকে একনিষ্ঠ ফরেস্ট অফিসারের ভূমিকায় তিনি যেন অনবদ্য। গহন, সবুজ অরণ্য এই ছবির প্রেক্ষাপট। সূর্যের নরম আলো, কুলকুল করে বয়ে চলা নদী, পতঙ্গের উড়ে বেড়ানোর শব্দ, পাতার খসখস আওয়াজ, পাখির ডাক, সবকিছুই যেন শেরনি ছবিতে দুর্দান্ত। প্রকৃতির অমোঘ হাতছানিতে দর্শক আকৃষ্ট হতে বাধ্য। রাকেশ হরিদাসের ক্যামেরা এবং অনীশ জনের সাউন্ড ডিজাইন দর্শককুলের মন টানবেই।